১৬:১৮:৫১

টিকাদান সপ্তাহের প্রাক্কালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা: ঝুঁকিতে ২ কোটিরও বেশি শিশু

শুনুন /

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা – ডাব্লু এইচ ও জানিয়েছে যে সাধারণ কিছু টিকা না দেওয়ায় প্রধানত উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রায় দুই কোটি কুড়ি লাখ শিশু গুরুতর কিছু রোগ থেকে সুরক্ষা পাচ্ছে না।

যেসব শিশুর প্রয়োজন তাদেরকে উপযুক্ত সময়ে টিকা পৌঁছে দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যকর্মীরা যেসব প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়েন সেগুলোর মধ্যে প্রধান হচ্ছে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অদক্ষতা, সংঘাত এবং দারিদ্র।

বিশে এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া বিশ্ব টিকাদান সপ্তাহের প্রাক্কালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে যে স্বাস্থ্যক্ষেত্রে প্রতিষেধক টিকার উপকার এবং প্রতিষেধক না দেবার বিপদ সম্পর্কে সবাইকে জানানোর জন্য আরো উন্নত ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরী।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিষেধক বিভাগের প্রধান ডঃ জাঁ মেরি ওকোবেলে বলছেন যে ডিপথেরিয়া, হাম, হুপিং কাশি, নিউমোনিয়া, পোলিও রোটাভাইরাস, ডায়রিয়া, রুবেলা এবং টিটেনাসের মতো রোগের বিরুদ্ধে প্রতিষেধক টিকাদানের মাধ্যমে প্রতিবছর প্রায় ত্রিশ লাখ মৃত্যু এড়ানো সম্ভব হয়।

ডঃ ওকোবেলে বলেন যে বিশ্বব্যাপী নবজাতকদের প্রায় আশি শতাংশকেই এসব মৌলিক প্রতিষেধক টিকা পূর্ণমাত্রায় দেওয়া হয়েছে যেটার হার অন্য অনেক জনস্বাস্থ্য কার্য্যক্রমের তুলনায় অনেক বেশি। কিন্তু, সর্বজনীন মাত্রা অর্জনে আমরা এখনও পিছিয়ে আছে প্রায় কুড়ি শতাংশ – এই কুড়ি শতাংশটা অনেক বেশি। এবং সেটাই ব্যাখ্যা করে কেন আমরা বিশ্বকে এখনও পোলিওমুক্ত করতে পারি নি।

ডঃ ওকোবেলে বলেন যে আমরা দেখছি জীবনরক্ষাকারী টিকা দিতে গেয়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রাণ হারাচ্ছেন।

ডঃ ওকেবেলে বলেন যে আমার মনে হয় এগুলোর নিন্দা জানানোর মতো এবং সেগুলো বন্ধ করার আবেদন জানানোর যথেষ্ট দৃঢ়তা আমাদের আছে ।

ডঃ ওকোবেলে বলেন যে আত্মতুষ্টি এবং টিকায় কাজ হয় না এমন ভিত্তিহীন ধারণার কারণে ফ্রান্স, ইটালী, স্পেন এবং যুক্তরাজ্যের মতো উন্নত দেশেও হামের পুনরাবির্ভাব ঘটেছে।

সবার জন্য স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা করতে নাগরিকদের নিবন্ধন প্রয়োজন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একজন পদস্থ কর্মকর্তা বলেছেন যে সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবার পরিকল্পনার জন্য নাগরিকদের নিবন্ধন এবং মৌলিক পরিসংখ্যান খুবই জরুরি। কিন্তু, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে যে বিশ্বের আশিটি দেশে জন্ম ও মৃত্যুর সনদসহ নাগরিকদের নিবন্ধনের কোন কার্য্যকর ব্যবস্থা নেই।

থাইল্যান্ডের ব্যাংককে নাগরিকদের নিবন্ধীকরণের বিষয়ে প্রায় দু'শতাধিক সরকারী – বেসরকারী প্রতিনিধি, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, শিক্ষাবিদ এবং অন্যান্য অংশীদারদের এক সভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সহকারী পরিচালক, ডঃ মেরি পল কিয়েনি একথা বলেন।

তিনি বলেন যে কতোজন শিশুর জন্ম হচ্ছে তা জানা না গেলে কতোগুলো প্রতিষেধক টিকার প্রয়োজন হবে তা জানা সম্ভব নয়। সম্তান-ধারণে সক্ষম নারীর সংখ্যা না জানা গেলে কতোজন ধাত্রীর প্রয়োজন তাও ঠিক করা সম্ভব নয়। এসব কারণেই তিনি নাগরিকদের নিবন্ধন এবং তাদের সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ ও নির্ভরযোগ্য কিছু তথ্য একটি কার্য্যকর ব্যবস্থার মধ্যে সংরক্ষণের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

সিরিয়ায় রাজনৈতিক সমাধান এখনও সম্ভব: বান কি মুন

জাতিসংঘ মহাসচিব, বান কি মুন বলেছেন যে সিরিয়ায় যদিও প্রতিদিনই দূর্ভাগ্যজনক পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে তবুও এখনো একটি রাজনৈতিক সমাধান সম্ভব।

বুধবার বিশ্বের নানা বিষয় নিয়ে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় তিনি বলেন যে সিরিয়ার সামরিক গতিবিধি দেশটিকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে এবং ঐ অঞ্চলকে বিপন্ন করে তুলছে।

মি বান বলেন যে বেসামরিক নাগরিকদেরকে এর মূল্য দিতে হচ্ছে এবং তাদেরকে অবশ্যই রক্ষা করতে হবে।

মি বান বলেন যে সিরিয়ার প্রতিবেশীদের ওপর যে দশ লাখেরও বেশি শরণার্থীর চাপ তৈরি হয়েছে তাদের সমর্থনে জাতিসংঘ তার সাধ্যমতো প্রয়োজনীয় সাহায্য পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

মি বান বলেন যে সম্ভাবনা ক্ষীণ মনে হলেও আমি এখনও মনে করি যে রাজনৈতিক সমাধান সম্ভব। এটাই রক্তপাত বন্ধ এবং একটি গণতান্ত্রিক নতুন সিরিয়ার যাত্রা সূচনার একমাত্র পথ।

মহাসচিব বলেন যে সংকটের একটি রাজনৈতিক সমাধানের জন্য জাতিসংঘ তার চেষ্টা অব্যাহত রাখবে।

তিনি বলেন যে সিরিয়ায় রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের যে অভিযোগ উঠেছে তা তদন্তের বিষয়ে তাঁর অনুসন্ধানী দলের তদন্তের বিষয়টিতে তিনি মনোযোগী রয়েছেন। তাঁর মনোনীত বিশেষজ্ঞ দল সিরীয় সরকারের সম্মতির অপেক্ষায় আছে।

২০১২ সালে পণ্য রপ্তানী স্থবির ছিলো : আঙ্কটাড

জাতিসংঘের বাণিজ্য বিষেয়ক সংস্থা – ইউ এন সি টি এ ডি বা আঙ্কটাড এর প্রকাশিত তথ্যে দেখা যাচ্ছে যে ২০১২ সালে বিশ্বে পণ্য রপ্তানীর মাত্রা স্থবির ছিলো। ২০১০ এবং ২০১১ সালে পণ্য রপ্তানী উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি পেলেও গতবছরে তা বেড়েছে মাত্র শূণ্য দশমিক দুই শতাংশ।

আঙ্কটাডের পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে যে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে পণ্য রপ্তানী বেড়েছে তিন দশমিক ছয় শতাংশ হারে তবে তা প্রধানত সীমিত ছিলো পেট্রোলিয়াম এবং গ্যাসের ক্ষেত্রে। এতে আরো দেখা যাচ্ছে যে জ্বালানী ছাড়া প্রাথমিক পণ্য রপ্তানী করে থাকে যেসব দেশ তাদের রপ্তানী এসময়ে কমেছে প্রায় আড়াই শতাংশ হারে।উন্নত দেশগুলোর ক্ষেত্রে এই রপ্তানী সংকোচনের হার পৌণে তিন শতাংশ।

আঙ্কটাডের হিসাবে দেখা যাচ্ছে যে বিশ্ববাণিজ্যে উন্নয়নশীল দেশগুলোর অংশীদারিত্ব বাড়ছে এবং ২০১২ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে চুয়াল্লিশ দশমিক চার শতাংশে।

পরিবেশবান্ধব নগর নির্মাণ বিষয়ে ইউ এন ই পি'র সমীক্ষা

২০৫০ সাল নাগাদ পরিবেশ সংরক্ষণ নিশ্চিত করার পাশাপাশি প্রায় ন'শো কোটি মানুষের চাহিদা মেটাতে সক্ষম এমন নগর গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বিশ্ব এক বড়ধরণের চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন।

জাতিসংঘের পরিবেশ কর্মসূচি – ইউ এন ই পি'র প্রধান আচিম ষ্টেইনার কেনিয়ার নাইরোবিতে নগরায়নের চ্যালেঞ্জ বিষয়ক এক সমীক্ষা কার্য্যক্রমের সূচনায় একথা বলেন।

আচিম ষ্টেইনার বলেন যে ২০৫০ সাল নাগাদ যেসব অবকাঠামো প্রয়োজন হবে তার ষাট শতাংশই এখনও নির্মিত হয়নি। যে বিপুল পরিমাণে নির্মাণ কাজ করতে হবে তার মাত্রাটি কল্পনা করুন। এর সাথে আরো যেটি ভাবনার বিষয় তাহোল নগর মানে শুধু অবকাঠামো নয়, বিভিন্ন পরিষেবা, সম্পদ, খাদ্য, পানি, জ্বালানি সরবরাহের প্রশ্ন আসবে।

আচিম ষ্টেইনার বলেন যে আমরা দূষণ ঘটাবো। আমাদের বর্জ্য পানি থাকবে, পয়ঃনিষ্কাশণের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে, আমাদের ক্ষতিকর গ্যাস নিঃসরণের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হবে।

ইউ এন ই পি'র নির্বাহী পরিচালক বলেন যে এই পটভূমিতেই তাঁর সংস্থা জাতিসংঘের আরেকটি সংস্থা ই্উ এন হ্যাবিট্যাটের সাথে একজোট হয়ে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের মাধ্যমে কাজ করছে।

সংঘাতে যৌন সহিংসতারোধ কার্য্যক্রমে সম্পদ যোগানোর আহ্বান

জাতিসংঘ মহাসচিব, বান কি মুন সংঘাতের সময় যৌন সহিংসতা ঠেকাতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীবাহিনীকে সাহায্য করার জন্য পর্য্যাপ্ত সম্পদ যোগানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

নিরাপত্তা পরিষদে সংঘাতকালে যৌন সহিংসতার বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে শান্তি ও নিরাপত্তায় নারী প্রসঙ্গ আলোচনার সময়ে মি বান একথা বলেন।

মহাসিচিব বান বলেন যে সংঘাতের সময় যৌন সহিংসতা রোধ এবং দোষীদের বিচারের ব্যবস্থা করার প্রশ্নে জাতিসংঘ ব্যবস্থায় নানাধরণের কার্য্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।
এক্ষেত্রে তিনি উদাহরণ হিসাবে গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র – ডি আর সিতে জাতিসংঘ মিশনের সহায়তায় সরকার কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত প্রসিকউশন সহায়তা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করেন।

মি বান বলেন যে দক্ষিণ সুদানে এখন আমরা আটজন মহিলা সুরক্ষা পরামর্শক মোতায়েন করেছি। দক্ষিণ সুদানে জাতিসংঘ মিশন – ইউএনমিস হচ্ছে প্রথম কোন শান্তিমিশন যেখানে মহিলা সুরক্ষা পরামর্শক নিয়োগ করা হয়েছে এবং তার জন্য বাজেটেও বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

মি বান বলেন যে আমরা ডিআরসি, কোট ডি ভোয়া এবং সেন্ট্রাল আফ্রিকা রিপাবলিকের জন্যও মহিলা সুরক্ষা পরামর্শক নিয়োগ করছি।

মি বান বলেন যে এসব জায়গায় এবং অন্যান্য যেসব স্থানের ক্ষেত্রে উদ্বেগের কারণ রয়েছে সেসব জায়গায় অতিরিক্ত মহিলা সুরক্ষা পরামর্শক নিয়োগের জন্য পর্য্যাপ্ত সম্পদের যোগান দেওয়ার জন্য আমি সদস্য রাষ্ট্রগুলোর প্রতি আহ্বান জানিাচ্ছি। পরিকল্পনা এবং বাজেট তৈরির ক্ষেত্রে আমাদেরকে অবশ্যই এই বিষয়টিকে একটি নিয়মিত শর্ত হিসাবে গ্রহণ করতে হবে।

মহাসচিব একইসাথে জাতীয় পর্য্যায়ে আইনের শাসন ও বিচারব্যবস্থার দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশেষজ্ঞ দলের কার্য্যক্রম বজায় রাখার জন্যও তহবিল অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন