১১:৪৬:০৯

জেরুজালেম প্রশ্নে একতরফা সিদ্ধান্ত শান্তিপ্রক্রিয়ার জন্য ক্ষতিকর

শুনুন /

ইজরায়েলী এবং ফিলিস্তিনীদের মধ্যে শান্তির সম্ভাবনা টিকিয়ে রাখা অন্য যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন বেশি গুরুত্বর্পূণ বলে শুক্রবার নিরাপত্তা পরিষদে মন্তব্য করেছেন জাতিসংঘের একজন জেষ্ঠ্য কর্মকর্তা।

মধ্যপ্রাচ্য শান্তি প্রক্রিয়ার বিষয়ে জাতিসংঘের বিশেষ সমন্বয়কারী নিকোলাই ম্লাদেনভ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইজরায়েলের রাজধানী হিসাবে স্বীকৃতি দেওয়ার পটভূমিতে সামগ্রিক পরিস্থিতি সম্পর্কে নিরাপত্তা পরিষদে কূটনীতিকদের অবহিত করেন।

তিনি জানান যে ঐ সিদ্ধান্তের পর ব্যাপকভিত্তিক প্রতিবাদ ও সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে এবং অন্তত একজন ফিলিস্তিনী নিহত এবং একশো চল্লিশ জনেরও বেশি আহত হয়েছেন।

জেরুজালেম ইজরায়েলী এবং ফিলিস্তিনী উভয়ের জাতীয় পরিচয়ের অংশ এবং তা সবসময়েই বজায় রাখার গুরুত্বের ওপর আলোকপাত করে মি ম্লাদেনভ তাঁর বক্তব্য শুরু করেন।

তবে, তিনি বলেন জাতিসংঘ সবসময়েই বলে এসেছে যে শহরটির অবস্থান এবং চরিত্র বদলে দেওয়ার যেকোন একতরফা চেষ্টা শান্তি প্রচেষ্টাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে এবং পুরো অঞ্চল জুড়ে তার বিরুপ প্রতিক্রিয়ার আশংকা রয়েছে।

মি ম্লাদেনভ জানান জাতিসংঘ মহাসচিবও এবিষয়ে স্পষ্টভাবে মনে করেন যে চলমান সংঘাত অবসানের একমাত্র পথ হচ্ছে দুই-রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধান যাতে ইজরায়েল এবং ফিলিস্তিন উভয়েরই রাজধানী হবে জেরুজালেম।

মি ম্লাদেনভ বলছিলেন যে আমি অতীতে অনেকবারই হুঁশিয়ারী দিয়েছি এবং আজ আবারও বলবো : ইজরায়েলী-ফিলিস্তিনী সংঘাতের সমাধান যদি সংশ্লিষ্ট জাতিসংঘ প্রস্তাবগুলোর আলোকে সমাধান না হয়, এমন একটি ব্যবস্থা যাতে উভয় জনগোষ্ঠীর আইনসম্মত আশা-আকাঙ্খা পূরণ না হয়, তাহলে ধর্মীয় চরমপন্থার র্ঘূণি পুরো মধ্যপ্রাচ্যেই ছড়িয়ে পড়তে পারে। আজ এমন এক গুরুতর ঝুঁকি তৈরি হয়েছে যাতে একের পর এক একতরফা পদক্ষেপ গ্রহণের মত ঘটনা ঘটতে পারে। এর পরিণতিতে আমাদের অভিন্ন লক্ষ্য শান্তি কেবল আরো দূরে সরে যাবে।

মি ম্লাদেনভ দুই-রাষ্ট্রভিত্তিক সমাধানের উদ্যোগে সহায়তার বিষয়ে জাতিসংঘের দৃঢ় অঙ্গীকারের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

তিনি বলেন ইজরায়েলী এবং ফিলিস্তিনী – উভয়ের জাতীয় আকাঙ্খা পূরণের এটিই একমাত্র পথ।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন