১৪:০৯:৪৪

২০১৭ সালে বিশ্বে বেকারের সংখ্যা ২০ কোটি : আইএলও

শুনুন /

জাতিসংঘের শ্রম সংস্থা জানিয়েছে যে বিশ্বে এখন কুড়ি কোট লোক বেকার যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় চৌত্রিশ লাখ বেশি। আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা, আইএলও'র এক নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে ক্ষুদ্র ব্যবসায় স্থবিরতা দেখা দিয়েছে।

এর সবচেয়ে খারাপ প্রভাব পড়েছে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে যেখানে প্রতি দুজনে একজনের কর্মসংস্থান করে ক্ষুদ্র এবং মাঝারি আকারের প্রতিষ্ঠানগুলো।

আরব দেশগুলোতে কর্মসংস্থানের সত্তুর শতাংশই হয় মাঝারি আকারের প্রতিষ্ঠানগুলোতে, আর সাব-সাহারা অঞ্চলে এর পরিমাণ প্রায় পঞ্চাশ শতাংশেরও বেশি বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

আইএলও'র নীতিবিভাগের উপ-পরিচালক ডেবোরা গ্রিণফিল্ড বলছেন যে প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে এসব প্রতিষ্ঠান আর বিকাশলাভ করছে না এবং এমনকি কোথাও কোথাও তা স্থবির হয়ে পড়েছে।

ডেবোরা গ্রিণফিল্ড বলেন যে আমরা যা দেখছি তা হোল বিনিয়োগ হচ্ছে না, কোম্পানিগুলো শ্রমিক নিয়োগে বিনিয়োগ করছে না, উৎপাদন শ্লথ হয়ে পড়ছে। সুতরাং, সামগ্রিকভাবে প্রবৃদ্ধি মিইয়ে পড়ছে এবং তার ফলে বেকারত্ব বাড়ছে।

১৩০টি দেশ থেকে পাওয়া সাম্প্রতিকতম পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে ২০০৮ সালের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দার আগে ক্ষুদ্র ও মধ্যম আকারের প্রতিষ্ঠানগুলোতে বৃহৎ প্রতিষ্ঠানের চেয়ে কর্মসংস্থানের হার ছিল বেশি। কিন্তু, ২০০৯ সালের পর ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে সাধারণভাবে নতুন চাকরি তৈরি হচ্ছে না।

আইএলও এই প্রবণতা বিপরীতমুখি করার লক্ষ্যে সরকারগুলোর প্রতি হস্তক্ষেপের আহ্বান জানিয়েছে।সংস্থা তার ওর্য়াল্ড এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড সোশাল আউটলুকে বলছে মানুষের কাজের পরিবেশ টেকসই উন্নয়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বর্পূণ ভূমিকা রেখে থাকে।

এতে বলা হয় কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হলে তাতে তাদের মজুরি বাড়ে চৌদ্দ শতাংশ এবং উৎপাদনশীলতা বাড়ে কুড়ি শতাংশ। বিপরীতে স্বল্পমেয়াদী চুক্তিতে নিয়োগ করা ঠিকাদারদের ওপর নির্ভরশীল হলে মজুরিও বাড়ে না এবং উৎপাদনশীলতাও হ্রাস পায়।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন