১২:১৪:২৩

'২০ বছর এভাবে চললে বিশ্ব বিপর্যয়ের ঝুঁকিতে পড়বে'

শুনুন /

জাতিসংঘ মহাসচিব ব্যান কি মুন বলেছেন যে আমরা এখন যেভাবে চলছি তা আগামী কুড়ি বছর বজায় থাকলে বিশ্ব একটা বিপর্যয়ের ঝুঁকির মুখে পড়বে।

বেইজিংয়ে বুধবার যে ভবিষ্যত আমরা গড়তে চাই শীর্ষক এক আলোচনায় তিনি বলেন যে আমাদের এই গ্রহের যে সীমাবদ্ধতাগুলো আছে এবং কার্বন নি:সরণের মতো সেগুলোর অনেকের ক্ষেত্রেই যে আমরা সীমা ছাড়িয়ে গেছি তা অনেকেই স্বীকার করছি না।

তিনি বলেন যে ২০৩২ সাল নাগাদ পৃথিবীর জনগোষ্ঠীর জন্য প্রয়োজন হবে আরো পঞ্চাশ শতাংশ বেশি খাবার, আরো ৪৫ শতাংশ বেশি জ্বালানী এবং আরো ত্রিশ শতাংশ বেশি পানি। মি ব্যান বলছিলেন যে কঠিন সিদ্ধান্তগুলো আমরা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মগুলোর জন্য ঝুলিয়ে রাখতে পারি না।

তিনি বলেন যে রিও প্লাস ফরটি বা রিও প্লাস সিক্সটির জন্য অপেক্ষা করার অবকাশ নেই। সময় আমাদের পক্ষে নয় এবং সেকারণেই বেশী দেরি হয়ে যাবার আগেই আমাদের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন।

সেবামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে ম্যান্ডেলা দিবস পালন

আঠারোই জুলাই নেলসন ম্যান্ডেলার ৯৪তম জন্মদিনে নেলসন ম্যান্ডেলা আন্তর্জাতিক দিবসে ৬৭ মিনিট সময় অন্যদের সাহায্যে ব্যয় করার জন্য জাতিসংঘ নেলসন ফাউন্ডেশনের সাথে একজোট হয়ে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

শান্তি এবং স্বাধীনতার সংস্কৃতিতে দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক এই প্রেসিডেন্টের অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ২০০৯ সালে আঠারোই জুলাইকে নেলসন ম্যান্ডেলা আন্তর্জাতিক দিবস হিসাবে স্বীকৃতি দেয়।

নেলসন ম্যান্ডেলা দক্ষিণ আফ্রিকার জনগণের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটানোর জন্য তাঁর জীবনের ৬৭ বছর যে সংগ্রাম করেছেন তার স্মারক হিসাবেই ৬৭ মিনিট জনসেবায় নিয়োগ করার আহ্বান জানান জাতিসংঘ মহাসিচিব ব্যান কি মুন।

আইন পরিবর্তনের কারণে রাশিয়ায় মানবাধিকারে নেতিবাচক প্রভাবের আশংকা

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার রাশিয়ায় সম্প্রতি প্রণীত কিছু আইনে দেশটির মানবাধিকার পরিস্থিতিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন।

হাই কমিশনার নাভি পিল্লাই এসব আইনকে আন্তর্জাতিক মানের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ করার ব্যবস্থা নেবার আহ্বান জানান।

রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত জুন মানে এমন কয়েকটি আইনে স্বাক্ষর করেছেন যাতে জনসমাবেশ আয়োজন এবং তাতে প্রশাসনিক অনুমতি দেবার বিধিমালায় নিয়ন্ত্রণমূলক সংশোধনী আনা হয়েছে।

শিশুদের মধ্যে এইডসের নতুন সংক্রমণ বন্ধের পরিকল্পনা

২০১৫ সালের মধ্যে শিশুদের দেহে এইডসের নতুন সংক্রমণ রোধ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করতে চলেছে জাতিসংঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ।

আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিতব্য উনবিংশতি আন্তর্জাতিক এইডস সম্মেলনের প্রাক্কালে ইউনিসেফের এইচ আই ভি – এইডস কার্যক্রম বিভাগের প্রধান ক্রেগ ম্যাকক্লিউর জাতিসংঘ রেডিওকে বলেন যে এই কার্যক্রমের জন্য সম্পদের যোগান আসতে শুরু করে প্রায় বছর দশেক আগে এবং তার পর থেকে এক্ষেত্রে ব্যপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।

ক্রেগ ম্যাকক্লিউর  বলেন যে বিশ্বে এক দশক আগে তিন কোটি চল্লিশ লাখ এই্চ আই ভি রোগীর মধ্যে চিকিৎসা সেবা প্রয়োজন ছিলো প্রায় দেড় কোটি রোগীর – যার মধ্যে তা পাচ্ছিলেন মাত্র দশ লাখেরও কম । আর, এখন যে নতুন পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে তাতে দেখা যাচ্ছে ২০১৫ সালের মধ্যে এই চিকিৎসা সেবা পাওয়ার বিষয়টি সার্বজনীন রুপ লাভ করবে।

কিন্তু এখনওতো বিশ্বে দৈনিক আড়াই হাজার শিশু-কিশোর এইডসে আক্রান্ত হচ্ছেন?

এই প্রশ্নের জবাবে ক্রেগ ম্যাকক্লিউর  বলেন যে অবশ্যই এক্ষেত্রে আরো অনেক কাজ করা প্রয়োজন। ক্রেগ ম্যাকক্লিউর বলেন যে একজন শিশুর জীবনের দুই দশক – অর্থাৎ জন্ম থেকে কুড়ি বছর বয়স পর্যন্ত যাদের জন্য জাতিসংঘ কাঠামোর মধ্যে ইউনিসেফ কাজ করে – সেখানে আমাদের লক্ষ্য স্পষ্ট যে ২০১৫ র মধ্যে মাতৃগর্ভে যেন শিশুর মধ্যে এইচ আই ভির সংক্রমণ ঘটার আশংকা দূর করা হবে। শুধু গর্ভকালীন সময়ে তাদেরকে সংক্রমণমুক্ত রাখাই নয় জন্মের পরও যেন শিশু সংক্রমণমুক্ত থাকে সেই ব্যবস্থাও করতে হবে।

২০১৫ সালের মধ্যে শিশুদেরকে এইচ আই ভি সংক্রমণমুক্ত করার এই পরিকল্পনাকে খুবই উচ্চাকাঙ্খী বলে মনে হয় কীনা ?

এই প্রশ্নের জবাবে ইউনিসেফ কর্মকর্তা ক্রেগ ম্যাকক্লিউর বলেন যে এটা অবশ্যই উচ্চাকাঙ্খী পরিকল্পনা কিন্তু তা বাস্তবায়নযোগ্য। প্রথমত, এটা যে করা সম্ভব সেই ধারণার প্রমাণ আছে। তিনি বলেন যে উচ্চ আয়ের দেশগুলো যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ক্যানাডা, পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলো, অষ্ট্রেলিয়া এবং অনেক মধ্যম আয়ের দেশও গর্ভাবস্থায় মায়ের থেকে শিশুর দেহে সংক্রমণের আশংকা কার্যত দূর করতে সক্ষম হয়েছে।এটা সম্ভব হয়েছে গর্ভবতী মায়েদের নিয়মিত পরীক্ষা এবং এই্চ আই ভি আক্রান্ত মায়েদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করে তা সম্ভব হয়েছে।

তিনি বলেন যে একই নীতি দরিদ্র দেশগুলোতেও কার্যকর করতে হবে। গর্ভাবন্থায় নিয়মিত পরীক্ষা এবং চিকিৎসা দেওয়ার মাধ্যমে মা থেকে শিশুর দেহে এই সংক্রমণ বন্ধ করা সম্ভব।

ইউনিসেফ বলছে এই চিকিৎসার মাধ্যমে জন্মদানের পরও মাকে নিয়মিত চিকিৎসা সেবা দেওয়ার বিষয়টি অব্যাহত রাখা প্রয়োজন।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন