২৩:২৮:১০

ইবোলা চিকিৎসায় অপরীক্ষিত ওষুধ ব্যবহার নৈতিকভাবে সিদ্ধ

শুনুন /

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা – ওর্য়াল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন , ডাব্লু এইচ ও বলছে যে ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় অপরীক্ষিত ওষুধ ব্যবহার নৈতিকভাবে সিদ্ধ ।

সংস্থা বলছে যে পশ্চিম আফ্রিকায় ইবোলা মহামারির প্রার্দুভাবে বিপুল সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হওয়া এবং উচ্চহারের মৃত্যুর কারণে রোগীদের জীবন বাঁচানো এবং এর বিস্তার রোধে অপরীক্ষিত চিকিৎসাপদ্ধতি প্রয়োগের দাবি উঠেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একজন সহকারী মহাপরিচালক, ড: মেরি পল কেইনি বলছেন যে বাজার ব্যবস্থার র্ব্যথ হওয়ায় দরিদ্র দেশগুলোতে ঝুঁকি বেড়েছে।

ড: পল কেইনি বলছিলেন যে বাস্তবতা হচ্ছে ইবোলার চিকিৎসায়  কোন নিবন্ধিত ওষূধ নেই সেটা বাজারব্যবস্থার একটি র্ব্যথতা। বাজারের র্ব্যথতার কারণ হচ্ছে এটি দরিদ্র দেশের  গরীব মানুষের রোগ, যেখানে কোন বাজার নেই।

জেনেভায় অনুষ্ঠিত এক সভায় একদল চিকিৎসা বিশেষজ্ঞ অপরীক্ষিত কোন চিকিৎসা পদ্ধতি প্রয়োগের আগে সিদ্ধান্তগ্রহণে সংশ্লিষ্ট জনগোষ্ঠীর অংশগ্রহণ, রোগী এবং তার পরিবারের সচেতন সম্মতি, সিদ্ধান্তগ্রহণের স্বাধীনতা এবং ব্যাক্তির গোপনীয়তা বজায় রাখাসহ কিছু নির্দিষ্ট নীতিমালা অনুসরণের নৈতিক বাধ্যবাধকতা মেনে চলার সুপারিশ করেছেন।

সম্প্রতি ইবোলা ভাইরাসে আক্রান্ত দুজন স্বাস্ত্যকর্মীর চিকিৎসায় পরীক্ষাধীন ওষুধ ব্যবহারের পর এই সুপারিশ করা হোল। ওষুধের সরবরাহ সীমিত হওয়ায় প্রশ্ন উঠেছে এই রোগের চিকিৎসায় কাদেরকে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ড: মেরি পল কেইনি এ প্রসঙ্গে বলেন যে কিছু প্রতিষেধক এবং কিছু থেরাপিকে সম্ভাবনাময় বলে মনে হচ্ছে তবে সেগুলোর এখনও কোন পরীক্ষা হয় নি।ক্লিনিকাল ট্রায়াল বা চিকিৎসা কার্য্যক্রমে এগুলোর কার্য্যকারিতার পরীক্ষা হয় নি। এগুলোর কয়েকটি ইতোমধ্যেই ব্যবহৃত হয়েছে , আর অন্য কয়েকটি সহানুভূতিশীল কারণে ব্যবহারের বিষয়টি বিচেনাধীন রয়েছে।

ড: পল কেইনি বলেন যে এগুলো কতোটা নিরাপদ এবং ফলপ্রসু হবে তা যেহেতু আমাদের জানা নেই সেহেতু যেখানেই চিকিৎসার জন্য এটি বিবেচিত হচ্ছে সেখানে যেকারণে তা ভাবা হচ্ছে তাকে আমরা বলি সহানুভূতিশীল ব্যবহার। এরপর যেটি প্রয়োজন তাহোল এসব চিকিৎসার ফলাফল থেকে উদ্ভূত তথ্যসমূহ সংগ্রহ করা এবং তা সবাইকে জানার সুযোগ দেওয়া।

ড: পল কেইনি বলেন যে প্যানেলিষ্টদের একজন উল্লেখ করেছেন যে এটি হচ্ছে একটি ঐতিহাসিক ভুলকে শুদরে দেওয়ার সুযোগ।

পশ্চিম আফ্রিকায় ইবোলা মহামারি দেখা দেওয়ার পর গিনি, লাইবেরিয়া, সিয়েরা লিওন এবং নাইজেরিয়ায় এপর্য্যন্ত এক হাজারেরও বেশি লোকের মৃত্যু হয়েছে।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন