১২:৩০:৩৮

আফগান নির্বাচন সত্যিকারের ঐতিহাসিক মুর্হুত: জাতিসংঘ

শুনুন /

আফগানিস্তানে শনিবার অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট ও প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনকে দেশটির জন্য একটি সত্যিকারের ঐতিহাসিক মুর্হুত বলে অভিহিত করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত এবং আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশনের প্রধান, ইয়ান কুবিস।

মি কুবিস বলেন যে র্দূযোগর্পূণ আবহাওয়া, হুমকী এবং ভয়কে উপক্ষা করে ভোট দিতে এসে আফগান নাগরিকরা তাঁদের দৃঢ়তার পরিচয় দিয়েছেন।

এই নির্বাচনেই প্রথমবারের মতো ক্ষমতা একজন গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেতার কাছ থেকে আরেকজন নির্বাচিত নেতার কাছে হস্তান্তরিত হবে।

মি কুবিস বলছিলেন যে এটি আফগানিস্তানের জন্য একটি অত্যন্ত ভালো দিন এবং এই ঐতিহাসিক দিনে আমি আফগানিস্তানের জনগণকে অভিনন্দন জানাতে চাই।

এটিই হচ্ছে আফগান কতৃপক্ষের র্পূণ নিয়ন্ত্রণে অনুষ্ঠিত প্রথম নির্বাচন।

উন্নয়ন এবং শান্তির জন্য আর্ন্তজাতিক ক্রীড়া দিবস পালন

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন যে ক্রীড়া হচ্ছে বিভিন্ন দেশ ও জাতিকে বিভক্তির উর্ধ্বে ঐক্যবদ্ধ করার একটি সর্বজনীন ভাষা।প্রথমবারের মতো উন্নয়ন এবং শান্তির জন্য আর্ন্তজাতিক ক্রীড়া দিবস পালন উপলক্ষ্যে এক বাণীতে মহাসচিব এই কথা বলেন।

তিনি বলেন যে ক্রীড়া তরূণদের ক্ষমতায়ন করে, স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটায় এবং সাম্য, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ এবং সুষ্ঠু প্রতিযোগিতার মতো জাতিসংঘের মূল্যবোধকে সুদৃঢ় করে।

মানবাধিকার এবং সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নকে এগিয়ে নেওয়ায় ক্রীড়ার যে ইতিবাচক ভূমিকা রয়েছে তাকে স্বীকৃতি দিতেই এই দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জাতিসংঘ জানিয়েছে।

ম্যালেরিয়াবিরোধী উদ্যোগে রক্ষা পেয়েছে ত্রিশ লাখ জীবন

আফ্রিকা ও ইউরোপীয় নেতাদের এক সভায় জাতিসংঘ মহাসচিব বলেছেন যে ম্যালেরিয়া মোকাবেলায় বড় আকারে কার্য্যক্রম পরিচালনার কারণে ত্রিশ লাখেরও বেশি জীবন বাঁচানো সম্ভব হয়েছে, যাদের নব্বুই শতাংশই শিশু।

চর্তূথ ইউরোপীয়-আফ্রিকা র্শীষসম্মেলনের সময় আফ্রিকান ইউনিয়ন কমিশনের উদ্যোগে ব্রাসেলসে আয়োজিত রোল ব্যাক ম্যালেরিয়া র্পাটনারশিপ অনুষ্ঠানে বৃহস্পতিবার মি বান বলেন যে ম্যালেরিয়া মোকাবেলার কার্য্যক্রম একটি ভালো বিনিয়োগ হিসাবে প্রমাণিত হয়েছে কেননা তাতে জীবনরক্ষা হয়েছে এবং অর্থনৈতিক প্রগতি ত্বরান্বিত হয়েছে।

তিনি বলেন যে ২০১২ সালে ম্যালেরিয়া মোকাবেলায় তহবিল সংগৃহিত হয়েছে আড়াইশো কোটি ডলার, কিন্তু বিশ্বে সবার কাছে এই কার্য্যক্রম পৌঁছাতে হলে প্রয়োজন হবে পাঁচশো কোটি ডলার।

তিনি বলেন যে আমাদের এই কার্য্যক্রমকে র্পূণতা দিতে সবার উদ্যোগী হওয়া প্রয়োজন।

তিনি বলেন সেটা কেবলমাত্র বিশ্বনেতা এবং দাতাদের অব্যাহত সহযোগিতার মাধ্যমেই সম্ভব।

নগরায়ন যথাযথ উপায়ে না হলে উন্নয়ন টেকসই হবে না: ইউএন হ্যাবিট্যাট

ভবিষ্যতের উন্নয়ন টেকসই করতে হলে দ্রত নগরায়নের ধারাকে 'যথাযথ উপায়ে' পরিচালনা করা প্রয়োজন বলে জাতিসংঘের একজন বিশেষজ্ঞ মন্তব্য করেছেন।

২০১৫-উত্তর উন্নয়ন সূচি এবং নগরসমূহের মধ্যে সর্ম্পক বিষয়ে কলাম্বিয়ার মেডেলিনে নগরবিদদের এক সম্মেলনে জাতিসংঘের মানববসতি বিষয়ক প্রতিষ্ঠান ইউএন হ্যাবিট্যাট এর একজন বিশেষজ্ঞ একথা বলেছেন।

বিশ্ব নগর ফোরাম (ওর্য়াল্ড আরবান ফোরাম)'র দ্বির্বাষিক সম্মেলনে নতুন উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার সাথে নগরায়নের বিষয়টিকে সম্পৃক্ত করার উপায় নিয়ে আলোচনা হয়।

ইউএন হ্যাবিট্যাটের নির্বাহী পরিচালক জুয়ান ক্লোস বলেন যে নগরায়ন এবং উন্নয়ন একে অন্যের সাথে সর্ম্পকিত।

মি ক্লোস বলেন যে উন্নয়নের একটি সূত্র হচ্ছে নগরায়ন। উন্নয়নের পরিপ্রেক্ষিত থেকে বিষয়টিকে মোকাবেলা করা না হলে উন্নয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

মি ক্লোস বলেন যে নগরায়ন যদি যথাযথ উপায়ে পরিচালিত হয় তাহলে উন্নয়ন টিকে থাকার সম্ভাবনা থাকে। কিন্তু, নগরায়ন যদি টেকসই উপায়ে না হয় তাহলে উন্নয়ন খুবই কঠিন হয়ে পড়ে।

ইউএন হ্যাবিট্যাটের অনুমান যে ২০৫০ সাল নাগাদ বিশ্বের জনসংখ্যার সত্তুর শতাংশই শহরাঞ্চলে বসবাস করবে।

আর এই নগরগুলোর এক-তৃতীয়াংশ বাসিন্দা বা প্রায় একশো কোটি মানুষ এখন বাস করছেন বস্তিতে।

রাখাইনে নিরাপত্তাহীনতার কারণে ত্রাণ সরবরাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে

জাতিসংঘের মানবিক কার্য্যক্রম সমন্বয় দপ্তর (ওসিএইচএ) বলছে যে মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশের নিরাপত্তাহীনতা যাঁদের সাহায্য প্রয়োজন তাঁদের মধ্যে ত্রাণবিতরণ বাধাগ্রস্ত করছে।

অব্যাহত সান্ধ্য আইন এবং মানবিক ত্রাণকর্মীদের সংখ্যা কমানোর বিষয়গুলিও ত্রাণ তৎপরতায় বিরুপ প্রভাব ফেলছে।

সংস্থা বলছে যে মাঠপর্যায়ে জাতিসংঘের প্রতিষ্ঠানগুলো এবং অন্যান্য ত্রাণসংস্থার মধ্যে গুরুতর উদ্বেগ তৈরি হয়েছে।

বৌদ্ধ এবং রোহিঙ্গা মুসলমানদের মধ্যে সহিংসতার কেন্দ্র হচ্ছে এই রাখাইন রাজ্য যেখানে শত শত লোকের প্রাণহানি ঘটেছে এবং হাজার হাজার মানুষ বাস্তুচ্যূত হয়েছেন।

গতসপ্তাহে একদল বিক্ষোভকারীর হামলায় জাতিসংঘ এবং অন্যান্য আর্ন্তজাতিক এনজিও'র দপ্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয়।তবে, এসব বাধা সত্ত্বেও ত্রাণকর্মীরা সিত্তে শহরে অবস্থান করে খাদ্য, পানি এবং স্বাস্থ্যসেবার মতো জরুরি ত্রাণকাজ চালিয়ে যাচ্ছে।

অস্ত্র বাণিজ্য চুক্তি অনুমোদনের জন্য মহাসচিব বানের আহ্বান

যেসব রাষ্ট্র এখনও অস্ত্র বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর এবং অনুমোদন করেনি তাদেরকে অবিলম্বে তা করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন।

এই চুক্তিটি অনুমোদনের প্রথম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে বুধবার মি বান কি মুন জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে এই আহ্বান জানান। চুক্তিটি কার্য্যকর হওয়ার জন্য পঞ্চাশটি সদস্য দেশের স্বাক্ষর প্রয়োজন।

এই চুক্তির ফলে প্রথমবারের মতো অন্ত্র লেনদেনের ক্ষেত্রে একটি বৈশ্বিক মান নির্ধারিত হবে এবং তা স্থানান্তরের প্রক্রিয়ায় গন্তব্য পরিবর্তনের সম্ভাবনা বন্ধ হবে।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন