১৬:৫০:১১

ক্রমবর্ধমান অসাম্য উন্নয়নকে বিপথগামী করবে: জাতিসংঘ

শুনুন /

জাতিসংঘের এক নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে স্বাস্থ্য এবং আয়ুবৃদ্ধির ক্ষেত্রে গত কুড়ি বছরে যেসব গুরুত্বর্পূণ অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে তা ক্রমবর্ধমান অসমতার কারণে নস্যাৎ হয়ে যেতে পারে।

জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন পুপলেশন এন্ড ডেভলেপমেন্ট (আইসিপিডি) বিয়োন্ড টুয়েন্টি ফোরটিন গ্লোবাল রির্পোটে যুক্তি দেওয়া হয় যে ঐসব অগ্রগতি টিকিয়ে রাখতে হলে দরিদ্রতম এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীগুলোর সুরক্ষায় সরকারগুলোর আইন প্রণয়ন এবং সেগুলো বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন।

রির্পোটে কিশোরী ও নারী এবং গ্রামীণ জনগোষ্ঠীকে সহিংসতা থেকে রক্ষা করোর বিষয়টিও এক্ষেত্রে অন্তর্ভুক্ত করার কথা এই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল, ইউ এন এফ পি এ'র নির্বাহী পরিচালক, বাবাটুন্ডে অসোতিমেহিন বলেন যে মাতৃমৃত্যুর হার কমানো এবং বালিকা ও নারীদের শিক্ষার সুযোগ সম্প্রসারণের মতো বিষয়গুলোতে বড়ধরণের অগ্রগতি লাভ সম্ভব হয়েছিলো। কিন্তু, এসব সাফল্য সবার কাছে সমানভাবে পৌঁছুচ্ছে না বলেও তিনি হুঁশিয়ারী দেন।

মি অসোতিমেহিন বলেন যে এই রির্পোটে অব্যাহত অসাম্য এবং বৈষম্যের চরম বৈপরীত্যগুলো প্রকাশ পেয়েছে যেগুলো উন্নয়নকে বিপথগামী করতে পারে। অনেক দেশ এবং অঞ্চলে প্রগতি শুধু বিত্তবানদের মধ্যে সীমিত এবং বিপুলসংখ্যক মানুষ উন্নয়নের প্রক্রিয়া এবং সুফল থেকে বঞ্চিত।

মি অসোতিমেহিন বলেন যে ১৯৯৮ থেকে ২০০৮ সাল পর্য্যন্ত সময়ে বৈশ্বিক আয়ের অর্ধেকেরও বেশি গেছে মাত্র পাঁচ শতাংশ ধনীদের কাছে আর একদম বিত্তহীন দশ শতাংশের কিছুই পৌঁছায়নি।

প্রতিবেদনে বলা হয় যে যেসব বৈষম্য দরিদ্রতম এবং প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে ক্ষতিগ্রস্ত করে সরকারগুলো যদি তাদের সুরক্ষা দিতে না পারে তাহলে গত কুড়ি বছরের উন্নয়নকে আর টিকিয়ে রাখা যাবে না।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন