১৩:৪৫:১৪

'বেতার সম্প্রচার শিল্পে নারী-পুরুষের বৈষম্য দূর করতে অনেক কাজ বাকী'

শুনুন /

আপনি কি কখনো বেতারে নারীকন্ঠ শুনেছেন বা টেলিভিশনে দেখেছেন? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে আপনি হলেন বিশ্বের মাত্র চব্বিশ ভাগ মানুষের একজন।জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান এবং সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর এক জরিপে এমন চিত্রই পাওয়া গেছে।

বেতার সম্প্রচার শিল্পে নারী ও পুরুষের মধ্যে সমতা আনার লক্ষ্যে আরও অনেক কাজ প্রয়োজন বলে জানিয়েছে ইউনেস্কো।

এই সম্প্রচার মাধ্যমের ভূমিকার ওপর আলোকপাত করার উদ্দেশ্যে প্রতি বছর তেরোই ফেব্রুয়ারি, বিশ্ব বেতার দিবস উদযাপন করা হয়ে থাকে।

ইউনেস্কোর গণমাধ্যম, উন্নয়ন এবং সমাজ বিভাগের প্রধান মিরটা লরেন্সো জাতিসংঘ রেডিওকে বলেন যে এই সম্প্রচার মাধ্যমে নারী-পুরুষের মধ্যে এখনও বিস্তর বৈষম্য রয়ে গেছে।

মিস লরেন্সো বলেন যে রেডিওতে প্রচারিত প্রতিবেদনগুলোর মধ্যে মাত্র সাঁইত্রিশ শতাংশ হচ্ছে নারীদের তৈরি।নারীদের রেডিও প্রতিবেদন তৈরির হার সবচেয়ে বেশি হচ্ছে আফ্রিকা এবং লাতিন আমেরিকায় যেখানে এই হার হচ্ছে আটত্রিশ শতাংশ।

মিস লরেন্সো বলেন যে ইউরোপের পরিস্থিতি ভালো এটা মনে করার কোন কারণ নেই। কেননা, ইউরোপে নারীদের দ্বারা রেডিও প্রতিবেদন প্রচারের হার হচ্ছে চল্লিশ শতাংশ।উত্তর আমেরিকায় এই হার হচ্ছে মাত্র উনত্রিশ শতাংশ।এর সাথে ক্যারিবীয় অঞ্চল এবং মধ্যপ্রাচ্যে এই হার হচ্ছে সবচেয়ে কম।

মিস লরেন্সো বলেন যে আরও দেখা যাচ্ছে যে নারী সংবাদদাতা এবং অনুষ্ঠান উপস্থাপিকারা পুরুষদের চেয়ে অনেক কম সম্প্রচারসময় পেয়ে থাকেন। উচুঁ নির্বাহী পদেও তাঁদের প্রতিনিধিত্ব কম।

মিস লরেন্সো বলেন যে নারী-পুরুষের বৈষম্য তাই এখনও একটি উদ্বেগের বিষয় এবং সেকারণেই ইউনেস্কো গণমাধ্যমের জন্য একটি জেন্ডার সূচক প্রণয়ন করেছে যেটি গণমাধ্যমগুলো নিজেদের পরিস্থিতি যাচাইয়ের জন্য ব্যবহার করতে পারে।

ইউনেস্কোর হিসাব অনুযায়ী নারীদের রেডিও প্রতিবেদন তৈরির হার এশিয়ায় পঁয়ত্রিশ শতাংশ।

রেডিওতে নারীদের পিছিয়ে থাকার কারণ সম্পর্কে মিস লরেন্সো বলেন যে এর পিছনে কারণ বহুবিধ।কর্মক্ষেত্র মেয়েদের জন্য সহায়ক না হওয়া বিশেষ করে হয়রানি বন্ধের ব্যবস্থা, কাজের সময় সহনশীল করা বা তাতে খাপ খাওয়ানোর সুযোগ থাকা, শিশুদের দেখাশোনার ব্যবস্থা না থাকা এক্ষেত্রে বড়ধরণের প্রতিবন্ধক বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ইউনেস্কোর প্রকাশিত এক লেখচিত্রের তথ্যে দেখা যাচ্ছে যে বেতারের অনুষ্ঠানগুলোর মাত্র ছয় শতাংশে নারীপুরুষের বৈষম্যের বিষয়গুলো স্থান পেয়ে থাকে। আর, বেতারে বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হিসাবে সাক্ষাৎকার গ্রহণের ক্ষেত্রে নারী প্রতিনিধিত্বের হার মাত্র কুড়ি শতাংশেরও কম।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন