১৬:১২:৪৬

বাংলাদেশে সহিংসতায় মহাসচিব বানের উদ্বেগ

শুনুন /

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে সহিংসতা দেখা দেওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন।

সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করার লক্ষ্যে বিরোধীদলের আহুত হরতালের সময় সংঘাতে কমপক্ষে দুজন নিহত হওয়ার খবরের পর বৃহস্পতিবার তাঁর মুখপাত্রের দপ্তর একটি বিবৃতি জারি করে। বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন দল এবং বিরোধীদলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘাতেরও খবর পাওয়া গেছে।

মার্টিন নেসরিকি হচ্ছেন জাতিসংঘের মুখপাত্র:

মার্টিন নেসরিকি বলছিলেন যে মহাসচিব উদ্বেগের সাথে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সহিংসতার প্রতি নজর রাখছেন। তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে পরমতসহিষ্ণুতা চর্চা ও শান্তিপূর্ণভাবে মত প্রকাশের আহ্বান জানিয়েছেন। মহাসচিব আশা প্রকাশ করেন যে সংলাপ আয়োজনে নেওয়া সাম্প্রতিক পদক্ষেপগুলো অব্যাহত থাকবে এবং একটি বিশ্বাসযোগ্য ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য সহায়ক পরিবেশ নিশ্চিত করতে তিনি সব রাজনৈতিক দলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

২০১৪ সালের জানুয়ারির মধ্যে নির্বাচন হওয়ার কথা।
পঞ্চার্শোধ বয়েসীদের মধ্যে এইডস সংক্রমণের হার বেশি : ইউএনএইডস

এইচ আই ভি ও এইডস বিষয়ে জাতিসংঘের যৌথ কর্মসূচি , ইউএনএইডস এর প্রকাশিত এক নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে বিশ্বব্যাপী পঞ্চার্শোধ মানুষের মধ্যে এইডস এবং এইচআইভি সংক্রমণের হার বেশি।

প্রতিবেদনে বলা হয় যে বিশ্বে প্রায় ছত্রিশ লাখ পঞ্চার্শোধ মানুষ এই্চআইভিতে আক্রান্ত এবং এঁদের মধ্যে উনত্রিশ লাখই উন্নয়নশলি দেশের বাসিন্দা।

ইউএনএইডস বলছে যে প্রতিবছর কমপক্ষে এক লাখ পঞ্চার্শোধ ব্যাক্তি এই্চআইভিতে আক্রান্ত হচ্ছেন।

তরুণদের মধ্যে যেধরণের ঝুঁকির্পূণ আচরণ দেখা যায় সেরকম অসর্তক যৌনমিলন এবং মাদকব্যবহারের মতো আচরণ তাঁদের মধ্যেও দেখা যাচ্ছে।

ইউএনএইডস পঞ্চার্শোধ ব্যাক্তিদের মধ্যে এইচআইভির সংক্রমণ ঠেকানো এবং তা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে উচ্চমাত্রার কার্য্যক্রম গ্রহণেরও আহ্বান জানিয়েছে।

বৈশ্বিক পার্লামেন্ট প্রতিষ্ঠার ধারণা জোরদার হচ্ছে

জাতিসংঘের একজন বিশেষজ্ঞ বলছেন যে সাধারণ মানুষের মতামতের প্রতিফলন ঘটানোর জন্য নির্বাচিত পার্লামেন্টারিয়ানদের একটি বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানের ধারণা গতিলাভ করছে।

গণতান্ত্রিক এবং ন্যায়ভিত্তিক আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার উন্নয়ন বিষয়ে স্বাধীন বিশেষজ্ঞ, আলফ্রেড ডি যায়াস সোমবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে তাঁর প্রতিবেদন পেশ করার পর সাংবাদিকদের কাছে একথা বলেন।

তিনি বলেন যে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের পরামর্শের ফোরাম হিসাবে এটি কাজ করতে পারে যা ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মডেলের মতো হতে পারে।

আইনের শাসন শক্তিশালী করছে আইসিসি

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত আইসিসি'র প্রেসিডেন্ট বিচারপতি স্যাং-হিউন সং বলেছেন যে আইসিসি বিশ্বের সর্বত্র আইনের শাসন জোরদার করা ও শান্তি, নিরাপত্তা এবং মানবাধিকার উন্নয়নের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে আইসিসির বার্ষিক প্রতিবেদন পেশ করার সময় বিচারপতি স্যাং-হিউন একথা বলেন।

বিচারপতি স্যাং-হিউন বলেন যে প্রসিকিউটর মালিতে তাঁর অষ্টম তদন্তকাজ শুরু করেছেন। আদালত তার প্রথম খালাস দেওয়ার রায় দিয়েছে যা এখন আপীল হিসাবে বিবেচনাধীন রয়েছে।

বিচারপতি স্যাং-হিউন বলেন যে দুটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে যাঁর ফলে একজন আত্মসমর্পণ করেছেন।তিনটি মামলার বিচারকাজ চলছে এবং আরেকটি শিগগিরই শুরু হবে।

বিচারপতি স্যাং-হিউন বলেন যে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত ঘোষিত হয়েছে যা আদালতের বিচারনীতির ক্ষেত্রে আইনী দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।

পশ্চিম তীরে ইজরায়েলের আরও বসতি নির্মাণের উদ্যোগে সমালোচনা

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন পূর্ব জেরুজালেমসহ পশ্চিম তীরে আরো ইজরায়েলী বসতি নির্মাণের পরিকল্পনার নিন্দা করেছেন।

বুধবার ইজরায়েলী সরকার অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমের রামাত শ্লোমোর ইহুদি বসতি এলাকায় আরো দেড় হাজার নতুন ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা ঘোষণা করে বলে খবর প্রচারিত হয়।ছাব্বিশজন ফিলিস্তিনী বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার কয়েকঘন্টার মধ্যেই এই ঘোষণা দেওয়া হয়।

মহাসচিবের মুখপাত্রের মাধ্যমে জারি করা বিবৃতিতে বলা হয় চূড়ান্ত সীমান্ত ঠিক হওয়ার আগে একতরফাভাবে নেওয়া কোন পদক্ষেপকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় স্বীকৃতি দেবে না। তীব্র অভ্যন্তরীণ বিরোধীতার মধ্যেও ফিলিস্তিনী বন্দীদের মুক্তি দেওয়ার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত অব্যাহত রাখায় বিষয়টির প্রশংসা করেন মি বান।

মানবাধিকাররক্ষীদের সরকার ও উন্নয়নবিরোধী হিসাবে চিহ্নিত করা বাড়ছে

বৃহদাকারারের উন্নয়ন প্রকল্পের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীগুলোর পক্ষে তৎপর মানবাধিকাররক্ষীরা ক্রমবর্ধমানহারে হয়রানির শিকার হচ্ছেন এবং তাঁদেরকে প্রায়শই সরকারবিরোধী এবং উন্নয়নের বিরুদ্ধে হিসাবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

মানবাধিকাররক্ষীদের বিষয়ে স্পেশাল র‌্যাপোর্টিয়ার মার্গারেট সেকাজ্ঞা সোমবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে তাঁর প্রতিবেদনে এসব কথা বলেন।

বিশেষজ্ঞ বলেন যে বিভিন্ন জলবিদ্যূৎ কেন্দ্র, বাঁধ এবং সড়ক নির্মাণ কিম্বা খনিজসম্পদ আহরণভিত্তিক বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠার কারণে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীকে এসব মানবাধিকাররক্ষীরা সাহায্য করার চেষ্টা করেন।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন