১১:০৯:৫৮

বিশ্বের মোট খাদ্যের এক-তৃতীয়াংশই অপচয় হয়: এফ এ ও

শুনুন /

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা – এফ এ ও'র এক প্রতিবেদনে  বলা হয়েছে যে খাদ্য অপচয়ের কারণে বছরে ক্ষতি হচ্ছে প্রায় পঁচাত্তর হাজার কোটি ডলার।

সংস্থার গবেষণায় বলা হচ্ছে যে বিশ্বে বছরে প্রায় একশো ত্রিশ কোটি টন খাদ্য নষ্ট হয় – যা বিশ্বের মোট উৎপাদিত খাদ্যের প্রায় এক তৃতীয়াংশ। এটা বিশ্বের প্রাকৃতিক সম্পদেরও ক্ষতি করছে।

এফ এ ও'র মহাপরিচালক, হোসে গ্রাসিয়ানো ডি সিলভা বলছেনি এর পরিণাম ব্যাপকভাবে বিস্তৃত।

মি ডি সিলভা বলেন যে, ভোক্তারা প্রতিদিন , বিশেষ করে ধনী দেশগুলোতে যে বিপুল পরিমাণে খাদ্য নষ্ট করেন তা পুরো সাবসাহারা অঞ্চলে উৎপাদিত খাদ্যের সমান। খাদ্য নিরাপত্তা এবং বিশ্বকে টেকসই করার ক্ষেত্রে এর নেতিবাচক প্রভাব ব্যাপক।

মি ডি সিলভা বলেন যে এই খাদ্য অপচয় যদি কমানো সম্ভব হয় তাহলে খাদ্যের সরবরাহ বাড়বে, উৎপাদন বাড়াতে হবে না এবং প্রাকৃতিক সম্পদের ওপর চাপ কমবে।

বিশ্বের প্রাকৃতিক সম্পদের ওপর খাদ্য অপচয়ের যে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে সেই প্রবণতাকে অবশ্যই বিপরীতমুখী করতে হবে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

মি ডি সিলভা বলেন যে বিশ্বের মোট খাদ্যের এক-তৃতীয়াংশই নষ্ট বা অপচয় হয় – কারণ আমাদের এমনসব আচরণ যা যথাযথ নয়।অথচ, ওই একইসময়ে বিশ্বে দৈনিক সতোরো কোটি লোক ক্ষুর্ধাত অবস্থায় দিন কাটান।

তিনি জানান যে বিশ্বে যে পরিমাণে খাদ্য অপচয় হয় তা সুইজারল্যাণ্ডের সারা বছরের মোট জাতীয় উৎপাদন বা জিডিপির সমান। বিশ্বে যেসব মাছ ও সামুদ্রিক খাদ্য নষ্ট হয় এবং অপচয় হওয়া খাদ্যের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য ব্যয় এই হিসাবে অন্তর্ভুক্ত নয়।

জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক কর্মসূচি – ইউ এন ই পি'র নির্বাহী পরিচালক, আচিম ষ্টেইনার বলেন যে পঁচাত্তর হাজার কোটি ডলারের সংখ্যাটি আমাদের সবার এবিষয়ে সতর্ক হওয়ার জন্য যথেষ্ট।

মি ষ্টেইনার বলেন যে আমরা সবাই সমাধানের অংশ হয়ে এই সমস্যাকে মোকাবেলা করতে পারি। আমরা আমাদের পরিবারে , পর্য্যটন খাত, রেঁস্তোরা, ক্যান্টিন, সুপারমার্কেট সব জায়গাতেই যেখানে খাদ্য তৈরি, বিক্রি অথবা খাওয়া হয় সবজায়গাতেই আমরা ভূমিকা রাখতে পারি। আমাদের সমাজে যাঁদের প্রাচূর্য্য রয়েছে তাঁদের কাছ থেকেও এটা শুরু হতে পারে কেননা তাঁরা অনেকেই সবজিটা দেখতে সুন্দর নয় বলে তা ফেলে দেন।

মি ষ্টেইনার বলেন যে বিক্রির জন্য তারিখ বেঁধে দেওয়ার যে ব্যবস্থা চালু আছে সেটাও এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। বিক্রির এই তারিখ শুধু নির্দেশনামূলক , ওই তারিখের পর তা ফেলে দিতে হবে বিষয়টা এমন নয়।

ফুড ওয়েষ্টেজ ফুটপ্রিন্ট: ইমপ্যাক্টস অন ন্যাচারাল রিসোর্সেস নামক এই প্রকাশনায় বলা হয় যে প্রতিবছর যে পরিমাণে খাদ্য উৎপাদনের পর তা না খেয়ে নষ্ট করা হয় তা পচে যাওয়ার পর তা থেকে যেপরিমাণ তরলপর্দাথ তৈরি হতে পারে তা ভলগা নদীর পানিপ্রবাহের সমান।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন