১৬:৫০:২৮

সমুদ্র পরিবহনে নতুন সনদ কার্য্যকর হোল ২০ অগাষ্ট

শুনুন /

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা – আই এল ও'র সমুদ্রপরিবহন শ্রম সনদ বা মেরিটাইম লেবার কনভেনশন গত বিশে অগাষ্ট থেকে কার্য্যকর হয়েছে। এরফলে, বৈশ্বিক জাহাজ চলাচল শিল্পে জাহাজমালিকদের মধ্যে যেমন ন্যায়সঙ্গত প্রতিযোগিতা সম্ভব হবে তেমনই নাবিকদের শোভনীয় কাজের পরিবেশ তৈরি হবে।

আই এল ও মহাপরিচালক গাই রাইডার সমুদ্রের স্বার্থে যেসব দেশ এখনও এই সনদে স্বাক্ষর করেনি তাঁদেরকে তা করার পাশাপাশি সব সরকার ও জাহাজমালিকদেরকে এই সনদ কার্য্যকরভাবে বাস্তবায়নে কাজ করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন যে এই সনদ সমুদ্রপরিবহনের ইতিহাসে একটি মাইলফলক।

গাই রাইডার বলেন যে মেরিটাইম লেবার কনভেনশন ২০০৬ বা এম এল সি ২০০৬ কার্য্যকর হওয়ায় আইএলও'র ইতিহাসে আজ ২০১৩'র বিশে অগাষ্ট একটি ঐতিহাসিক দিবস।

নাবিকদের মৌলিক অধিকারের এই আইন যাকে প্রায়শই সিফেয়ার্রাস বিল অব রাইটস বলে অভিহিত করা হয় তা আজ আন্তর্জাতিক আইনে পরিণত হলো এবং বিশ্বের সামুদ্রিকযানগুলো এবং তার নাবিকদের ষাঠ শতাংই এটির আওতায় আসবে।

মি রাইডার বলেন যে এটা একটা বড় অগ্রগতি, তবে তার চেয়েও উৎসাহের বিষয় হচ্ছে এর অনুমোদন প্রক্রিয়া গতিলাভ করেছে। আগামী বছর নাগাদ বিশ্বের জাহাজ এবং নাবিকদের সত্তুর শতাংশই এই সনদের আওতায় আসবে।

এমএলসি ২০০৬ এর প্রতি আন্তর্জাতিক মেরিটাইম সংস্থা – আই এম ও'র জোর সমর্থন রয়েছে। আই এম ও বিশ্ব বাণিজ্যের প্রায় নব্বুই শতাংশ পণ্যের সামুদ্রিক পরিবহন তদারক করে থাকে।

নাবিকদের জন্য শোভনীয় কাজের মান নিশ্চিত করার পাশাপাশি এম এলসি ২০০৬ স্বাক্ষরকারী দেশগুলোর পতাকাবাহী জাহাজগুলোর মালিকদের জন্য প্রতিযোগীতার ক্ষেত্রে সমতা আনয়নের মাধ্যমে বিশ্বে নির্ভরযোগ্য ও দক্ষ সামুদ্রিক পরিবহনব্যবস্থায় প্রতিযোগীতা বাড়ানোর বিষয়গুলোর সবই এই একই সনদের দ্বারা পরিচালিত হবে।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন