১৭:৫২:২৮

সিরীয় সংঘাতের অবসান ঘটাতে হবে: বান

শুনুন /

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন বলেছেন যে সিরীয় সংঘাতের অবসান ঘটানোর লক্ষ্যে জেনেভায় বৈঠক আয়োজনের জন্য তিনি সব চেষ্টাই চালাবেন।

বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সাথে বৈঠকের প্রাক্কালে মহাসচিব সাংবাদিকদের বলেন যে এই সংঘাতের প্রায় আড়াই বছর র্পূণ হতে চলেছে।

মি বান বলেন যে এক লাখেরও বেশি লোক নিহত হয়েছেন। লাখ লাখ লোক বাস্তুচ্যূত হয়েছেন নয়তো প্রতিবেশী দেশগুলোতে শরণার্থী হিসাবে আশ্রয় নিয়েছেন।

মি বান বলেন যে আমাদেরকে অবশ্যই এর ইতি ঘটাতে হবে। উভয় পক্ষকেই সামরিক ও সহিংস তৎপরতা বন্ধ করতে হবে। এবং একারণেই যতো শিগগির সম্ভব জেনেভায় একটি শান্তি সম্মেলন হওয়া প্রয়োজন।

শ্রম আইনে আরো সংস্কারের জন্য বাংলাদেশের প্রতি আই এল ও' র আহ্বান

বাংলাদেশের শ্রম আইনের সংশোধনী শ্রমিকদের অধিকার এবং পেশাগত নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্য বিষয়ক উদ্বেগসমূহ দূর করার পথে প্রথম একটি পদক্ষেপ হিসাবে তার যর্থাথতা প্রমাণ করবে বলে আশাবাদ প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের শ্রমবিষয়ক সংস্থা – আই এল ও।

তবে, একইসাথে সংস্থা শ্রমিকদের সুরক্ষায় আরো সমন্বিত সংস্কারের পথে এগুনোর জন্য দেশটির সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

মঙ্গলবার প্রকাশিত এক বিবৃতিতে আই এল ও বলেছে যে বিভিন্ন অনুমোদিত সনদের আলোকে পালনীয় বাধ্যবাধকতা এবং জুন মাসে অনুষ্ঠিত আর্ন্তজাতিক শ্রম সম্মেলন ও আটই জুলাইয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে সম্পাদিত সাসটেইনেবল কমপ্যাক্ট সমঝোতায় যেসব অঙ্গীকার করা হয়েছে বাংলাদেশ সরকারকে সেগুলো প্রতিপালনের জন্য আই এল ও আহ্বান জানাচ্ছে।

বিবৃতিতে বলা হয় যে সরকারের প্রতিশ্রুতিসমূহ এবং বাধ্যবাধকতা পূরণে শ্রমআইনে আরো কিছু গুরুত্বর্পূণ সংস্কারের প্রয়োজন হবে এবং তা জরুরি ভিত্তিতে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিতে হবে।

গত ১৫ই জুলাই বাংলাদেশ তার শ্রম আইন ২০০৬ সংশোধন করার পর আই এল ও এই বিবৃতি দিলো।

শিশুমৃত্যুর হার কমানোয় সাফল্যের জন্য বাংলাদেশের প্রশংসায় ইউনিসেফ

জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা, ইউনিসেফ ২০৩৫ সালের আগেই প্রতিরোধযোগ্য শিশু মৃত্যুর অবসান ঘটাতে বাংলাদেশ সরকারের অঙ্গীকারের প্রশংসা করেছে।

মা ও শিশু মৃত্যুর হার কমিয়ে আনার ক্ষেত্রে অর্জিত সাফল্যের ওপর ভিত্তি করে এই নতুন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক, অ্যান্থনি লেক বলেছেন যে বাংলাদেশের কাছ থেকে অনেক কিছু শেখার আছে। ১৯৯১ সাল থেকে ২০১১ সালের মধ্যে দেশটিতে পাঁচ বছরের কম বয়েসী শিশুমৃত্যুর হার প্রায় পঁচাত্তর শতাংশ কমেছে যা আংশিকভাবে উদ্ভাবন এবং অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মাধ্যমেই সম্ভব হয়েছে।

বাংলাদেশের সরকার এবং ইউনিসেফের তথ্য অনুযায়ী দেশটিতে শিশুমৃত্যুর ষাট শতাংশই ঘটে থাকে জন্মের প্রথম আঠাশ দিনের মধ্যে প্রধানত শ্বাসকষ্ট, নবজাতকের দেহে বিভিন্ন সংক্রমণ, অকালীন জন্ম এবং জন্মকালীন জটিলতার কারণে।

ইউনিসেফের হিসাবে দেশটিতে এখনও ৭১ শতাংশ প্রসবদানের বিষয়টি হয়ে থাকে বাড়িতে। যেকারণে মি লেক বলেন যে জন্মকালীন সহায়তা এবং টিকাদানের মতো কার্য্যক্রমের পরিধি দরিদ্রতম জনগোষ্ঠীর মধ্যে সম্প্রসারণের বিষয়টিই এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ।

খোলা জায়গায় মলত্যাগ বন্ধে ১৯ নভেম্বর বিশ্ব টয়লেট দিবস

বিশ্বব্যাপী উপযুক্ত পয়ঃব্যবস্থা থেকে বঞ্চিত প্রায় আড়াইশো কোটি মানুষের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ সর্বসম্মতভাবে একটি প্রস্তাব পাশ করেছে।

খোলা জায়গায় মলত্যাগ বন্ধের চেষ্টায় ১৯শে নভেম্বর বিশ্ব টয়লেট দিবস পালনের প্রস্তাবের পক্ষে বুধবার রাষ্ট্রদূতরা ভোট দিয়েছেন।

জাতিসংঘ বলছে যে এই ব্যবস্থার কারণে পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হয়ে প্রতিবছর অন্তত দুহাজার শিশুর মৃত্যু হচ্ছে।

সাধারণ পরিষদে প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন সিঙ্গাপুরের কূটনীতিক র্মাক নিও।

র্মাক নিও বলেন যে  স্থানীয়, জাতীয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বার্থসংশ্লিষ্ট সবাই নিজেদের অগ্রাধিকার, চিাহিদা এবং নির্দিষ্ট পিারিপার্শ্বিকতার আলোকে  সবার জন্য স্বাস্থ্যসম্মত পয়ব্যবস্থার নিরীখে উনিশে নভেম্বর বিশ্ব টয়লেট দিবস পালনের বিষয়টিকে সবাই গ্রহণ করবেন বলে আমরা আশা করি।

জাতিসংঘের হিসাবে অপর্যাপ্ত পয়নিষ্কাশন এবং পানি সরবরাহ ব্যবস্থার কারণে উন্নয়নশীল দেশগুলো বার্ষিক ছাব্বিশ হাজার কোটি ডলার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

বিশ্বব্যাংক, আই এম এফ এর ঋণে ষাট শতাংশ পার্লামেন্টের কোন ভূমিকা নেই

বিশ্ব ব্যাংক এবং আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল – আই এম এফ এর মতো আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে সরকারগুলো যেসব ঋণের চুক্তি করে বিশ্বের প্রায় চল্লিশ শতাংশ পার্লামেন্টেরই সেসব চুক্তি অনুমোদনের আইনগত ক্ষমতা নেই।

ইন্টার-পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন – আই পি ইউ এবং বিশ্বব্যাংকের যৌথভাবে পরিচালিত এক বৈশ্বিক সমীক্ষায় এই তথ্য পাওয়া গেছে।

সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে যে প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ পার্লামেন্টেরই ঋণ অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় কোন পর্যায়েই কোনধরণের অংশগ্রহণ নেই।

নীরব মহামারির রুপ নিচ্ছে হেপাটাইটিস ভাইরাসের সংক্রমণ

যকৃতের গুরুতর ক্ষতি করে এমন পাঁচটি হেপাটাইটিস ভাইরাসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সরকারগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা – ডাব্লু এইচ ও।

এসব ভাইরাসের কারণে প্রতিবছর প্রায় চৌদ্দ লাখ লোকের মৃত্যু ঘটছে।

এসব হেপাটেইটিসের মধ্যে বিশেষ করে বি এবং সি টাইপের ভাইরাস যকৃতের ক্যান্সারের মতো দীর্ঘস্থায়ী এবং র্দূবল করে ফেলা রোগের রুপ নিতে পারে।

আঠাশে জুলাই বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস পালনের প্রাক্কালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে সংক্রামক হেপাটাইটিস কখন সংক্রমিত হচ্ছে তা অধিকাংশ মানুষই বুঝতে পারেন না বলে এটি একটি নীরব মহামারির রুপ নিচ্ছে।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন