১৭:২০:২২

তামাকবিরোধী প্রচারণার সুফল পাচ্ছেন তিনশো কোটি লোক

শুনুন /

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা – ডাব্লু এইচ ও জানিয়েছে যে তামাক এবং তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন, পৃষ্ঠপোষকতা এবং প্রচারমূলক কার্য্যক্রমের ওপর পুরোপুরি নিষেধাজ্ঞা কার্য্যকর করেছে অন্তত চব্বিশটি রাষ্ট্র।

সংস্থা জানায় যে গত পাঁচ বছরে তামাক নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে যে ব্যবস্থাগুলো সবচেয়ে বেশি অনুসৃত হয়েছে সেগুলো হোল কর্মক্ষেত্র এবং প্রকাশ্য জনসমাগমের এলাকাগুলোকে ধূমপান মুক্ত হিসাবে ঘোষণা করা। কর্মক্ষেত্রের পুরোটা , জনসমাগমের এলাকা এবং গণপরিবহনে ধূমপান পুরোপুরি নিষিদ্ধ করেছে বত্রিশটি রাষ্ট্র।

তামাকজনিত রোগের বৈশ্বিক মহামারি র্শীষক বার্ষিক রির্পোটে সংস্থা বলছে যে বিশ্বে এখন তিনশো কোটিরও বেশী লোক তামাকবিরোধী জাতীয় প্রচারভিযানের আওতায় এসেছে – যার অর্থ হচ্ছে কোটি কোটি মানুষ যাঁরা ধূমপান করেন না তাঁদের নতুন করে ধূমপান শুরুর সম্ভাবনা এখন কমে গেছে।

তবে, সংস্থা বলছে যে বিশ্বে এখনও সাতষট্টিটি দেশ ব্যাপকভিত্তিতে তামাকের বিজ্ঞাপন, পৃষ্ঠপোষকতা ও প্রচারণা অনুমোদন করছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক, মার্গারেট চ্যান বলছেন যে ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বে তামাকব্যবহারজনিত কারণে এক বছরে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে আশি লাখে পৌঁছাবে।

সংস্থার একজন পরিচালক হলেন ডঃ ডগলাস বেচার বলেন যে বাজারের প্রসার মানেই আরো বেশিসংখ্যায় মৃত্যু এবং তামাকশিল্প হচ্ছে মৃত্যুর মেশিন। আর এই শিল্প বেশি বেশি করে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে সুযোগ খুঁজছে যেখানে কোন কোন জনগোষ্ঠীর মধ্যে তামাকসেবীর হার হয়তো খুব বেশি নয়।

ডঃ বেচার বলেন যে বুট কিম্বা টির্শাটে কোম্পানীর লোগো ছাপানো বিজ্ঞাপন কিম্বা ডিসকোর মতো বিনোদনকেন্দ্রে বিনামূল্যে নমুনা বিতরণের মতো প্রচার কৌশলে অনুমতি দেওয়া চলে না।

ডঃ বেচার বলেন যে এগুলোর সবই নিষিদ্ধ করতে হবে কেননা এটিই হচ্ছে একমাত্র পন্থা যা দিয়ে তামাক শিল্পের প্রচারণা বন্ধ করা যাবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার হিসাবে তামাকসেবনই হচ্ছে বিশ্বে সবচেয়ে বেশি প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যুর কারণ। বছরে এই তামাকজনিত রোগে প্রায় ষাট লাখ লোকের মৃত্যু হয়ে থাকে বলে সংস্থা জানায়।তামাক সেবনে ক্যান্সার, হৃদরোগ, বহুমূত্র এবং শ্বাসযন্ত্রের নানাধরণের রোগ হয়ে থাকে।

Loading the player ...

সংযোগ বজায় রাখুন